কোরআনের গুরুত্ব

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী | বুধবার, ২৮ জুন ২০১৭ | পড়া হয়েছে 667 বার

রাব্বি জিদনি ইলমা। হে আমাদের মহান রব, আমাদের জ্ঞান প্রজ্ঞা বাড়িয়ে দিন। যে জ্ঞান গ্রন্থ আপনি গ্রহবাসীর জন্য দান করেছেন। সে গ্রন্থ যেন আমরা নিজেরা পাঠ করে এর পাঠ উপযোগিতা সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে পারি। হে আমাদের রব, আমরা যদি এ দায়িত্ব সম্পন্ন না করতে পারি তাহলে আপনার নামের প্রশংসা এ দুনিয়ায় কে ছড়াবে? আমাদের আপনার জ্ঞান গ্রন্থের আলোয় আলোকিত বান্দা বানিয়ে দিন।

আল্লাহতাআলা মানুষের জীবন পরিচালনার জন্য কোরআনুল কারিম নামক একটি পথপ্রদর্শক গ্রন্থ দান করেছেন। উদ্দেশ্য হলোÑ মানুষ যেন এ গ্রন্থের আলোকে তার ব্যক্তিজীবন, পারিবারিক জীবন, সামাজিক জীবন, রাজনৈতিক এবং আন্তর্জাতিক জীবন পরিচালনা করতে পারে। কিন্তু কালের বিবর্তনে অন্যান্য ঐশী গ্রন্থের মতো মানুষ এ মহান গ্রন্থকেও বিভিন্নভাবে পরিত্যাগ করেছে, এর শিক্ষা ভুলে গেছে। পবিত্র কোরআনের ওপর বিশ্বাসী দাবি করার পরও যারা কোরআন তেলাওয়াত করে না, কোরআন বোঝার চেষ্টা করে না, কোরআনের সমাজ কায়েমের আন্দোলনে জীবন বাজি রেখে লড়াই করে না, তাদের বিরুদ্ধে রাসুল (সা.) কেয়ামতের দিন মহান আল্লাহর আদালতে এক কঠিন মামলা করবেন। সুরা ফোরকানে আল্লাহতাআলা রাসুলের (সা.) মামলাটি এভাবে উল্লেখ করেছেন, ‘আর রাসুল বলবে, হে আমার প্রতিপালক! আমার জাতি এ কোরআনকে পরিত্যক্ত করে রেখেছিল।’ (সুরা ফোরকান, ২৫:৩০।)

আলোচ্য আয়াতের আলোকে সব মুফাসসির একমত, কোরআনকে পরিত্যাগ-পরিত্যক্ত করা মহাপাপ। কোরআনকে পরিত্যাগ করা কয়েকভাবে হতে পারে। কোরআন অস্বীকার করা, কোরআন অবিশ্বাস করা, কোরআন সম্পর্কে সন্দেহ করা, কোরআন না পড়া, কোরআন শিখে ভুলে যাওয়া, কোরআনের অর্থ না বোঝা, কোরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনা না করা, কোরআন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে বাধা প্রদান করাÑ এসবই কোরআন পরিত্যাগের অন্তর্ভুক্ত। রাসুলের (সা.) একান্ত সেবক হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘কোরআন শেখার পর যে ব্যক্তি কোরআন তেলাওয়াত করল না, কোরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করল না বরং কোরআনকে ঘরের এক কোণে ঝুলিয়ে রাখল, কেয়ামতের দিন সে আল্লাহর সামনে গলায় ঝুলন্ত কোরআন নিয়ে উপস্থিত হবে। কোরআন বলবে, হে আল্লাহ! আপনার এ বান্দা আমাকে পরিত্যাগ করেছে, পরিত্যক্ত করে রেখেছে। আপনি তার এবং আমার মাঝে ফায়সালা করে দিন। (কুরতুবি।)

প্রখ্যাত মুফাসসির হাফেজে হাদিস আল্লামা ইমাদুদ্দিন ইবনে কাসির (রহ.) কোরআন পরিত্যাগের ব্যাখায় লেখেন, ‘কাফেরদের সামনে কোরআন তেলাওয়াত করা হলে তারা কোরআন শুনত না এবং অন্যকে শুনতেও দিত না। কোরআনের ভাষায়, ‘কাফেররা বলে, তোমরা এ কোরআন শোনবে না এবং এটা আবৃত্তি করার সময় হট্টগোল/শোরগোল সৃষ্টি করবে। তাহলে তোমরা বিজয়ী হবে। (সুরা হামিম সাজদাহ, ৪১:২৬।) এটা ছিল কাফেরদের কোরআন পরিত্যাগ করা এবং কোরআনের ওপর ইমান না আনা। কোরআনের সত্যতা স্বীকার না করা, কোরআন সম্পর্কে চিন্তা-গবেষণা না করাও কোরআন পরিত্যাগের অন্তর্ভুক্ত। (ইবনে কাসির।)

প্রত্যেক মুসলমানই দাবি করে তারা কোরআন বিশ্বাস করে এবং ভালবাসে। কিন্তু কোরআনের সঙ্গে তাদের আচরণ দেখলে যে কেউ বলতে বাধ্য হবে, নিশ্চয়ই এরা কোরআনকে পরিত্যাগ করেছে। কোরআন এসেছে মানুষের জীবনকে বদলানোর জন্য। ‘বদলে যাও বদলে দাও’Ñ এটি কোরআনের স্লোগান। আল্লাহতাআলা বলেন, ‘আল্লাহ কোনো জাতির ভাগ্য পরিবর্তন করেন না, যতক্ষণ না তারা নিজেরা নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করে। (সুরা রা’দ, ১৩:১১।)

জীবনে অসংখ্যবার কোরআন খতম করেছে, কিন্তু অর্থসহ বুঝে একটি আয়াত কিংবা সুরা পড়া হয়নিÑ আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলায় এমন মানুষের সংখ্যাই বেশি। কে যেন রটিয়ে দিল অর্থ জানা ছাড়া কোরআন পড়লেও সাওয়াব পাওয়া যায়। সে থেকেই মানুষ সওয়াবের পেছনে ছুটছে নিরন্তর। তাদের জানানো হয়নি, কোরআন এসেছে বোঝার জন্য, চিন্তা-গবেষণার জন্য। কোরআন সম্পর্কে চিন্তা-গবেষণা না করলে কেয়ামতের দিন প্রিয় নবীর মামলায় আসামি হয়ে মহাপ্রতাপশালী অসীম ক্ষমতাধর পর্যন্ত আল্লাহর আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। কেরাআন পরিত্যাগের অপরাধে অপরাধী হয়ে কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হবে। হে আমার মুমিন ভাই! আদরের বোন! আসুন আমরা কোরআন দিয়ে নিজের ভাগ্য বদলাই। কোরআন শিখি, কোরআন বুঝি, কোরআন অনুযায়ী জীবন গড়ি। হে দয়াময়! কোরআনকে আমাদের জীবনপথের পাথেয় করে দিন। আমিন।

লেখক : বিশিষ্ট মুফাস্সিরে কোরআন ও

গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

www.selimazadi.com
see more

মন্তব্য...

comments

কে. আর প্লাজা (১২ তলা) ৩১, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০
ফোন: ০২-৯৫১৫৬৪৬, মোবাইল: ০১৭১৮৭৭৮২৩৮, ০১৯৬৫৬১৮৯৪৭
ইমেইল- mawlanaselimhossainazadi1985@gmail.com
ওয়ের সাইট: selimazadi.com