ভালো মৃত্যুর প্রস্তুতি

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী | বুধবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | পড়া হয়েছে 71 বার

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

মৃত্যু। এপারের জীবনের শেষ। ওপারের অনন্ত জীবন শুরু। মৃত্যু যে কোনো মুহূর্তেই আসতে পারে।

এ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘কেউ জানে না সে আগামীকাল কী উপার্জন করবে এবং কেউ জানে না তার মৃত্যু কোথায় ঘটবে।’ (সুরা লোকমান, আয়াত ৩৪।)
আল্লামা ইবনে রজব (রহ.) এ আয়াতের ব্যাখ্যায় বলেন, ‘মানুষসহ প্রতিটি প্রাণীর প্রতিটি মুহূর্ত যেন তার মৃত্যুর মুহূর্ত। এ জন্য রসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হে তারেক! মৃত্যু আসার আগেই মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হও।’ (মুস্তাদরাক হাকেম, হাদিস নম্বর ৮৯৪৯)।

কিছু মৃত্যু জগৎ আলোড়িত করে। প্রতিটি মানুষকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে যায়। আর কিছু মৃত্যু মানুষকে স্বস্তি দেয়। জুলুম-অত্যাচারের অবসান ঘটায়। কোনো এক কবি বলেছিলেন, ‘এমন জীবন তুমি করিবে গঠন/মরণে হাসিবে তুমি কাঁদিবে ভুবন।’ ভালো মৃত্যুর জন্য চাই পরিকল্পিত জীবন। আর এ জন্য প্রয়োজন আল্লাহর রহমত বা বিশেষ দয়া।

রসুল (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহতায়ালা কোনো বান্দার মঙ্গল চাইলে তাকে যোগ্য করে তোলেন। সাহাবায়ে কেরামগণ জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রসুল! কীসের যোগ্য? রসুল (সা.) বললেন, মৃত্যুর আগে বেশি বেশি নেক আমল করার তৌফিক দিয়ে ওই ব্যক্তিকে আল্লাহ জান্নাতের যোগ্য করে তোলেন।’ (তিরমিজি, হাদিস নম্বর ২১৪২।)

অন্য হাদিসে রসুল (সা.) বলেন, ‘যখন আল্লাহতায়ালা কোনো বান্দার কল্যাণ চান, তখন তাকে শক্তি দেওয়া হয়। সাহাবিরা বললেন, কীসের শক্তি? জবাবে রসুল (সা.) বললেন, বেশি বেশি নেক আমল করার শক্তি।’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নম্বর ১৭৮১৯)।

মৃত্যু সম্পর্কে এক আরব কবি বলেছেন, জীবন হলো কয়েকটি চোখের পলকের নাম। অর্থাৎ জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সময়কাল চোখের পলকের মতোই ক্ষুদ্র। তাই একজন বুদ্ধিমান মানুষের করণীয় হলো সময়ের সর্বোচ্চ ব্যবহার করে মুমিন মৃত্যুর জন্য প্রস্তুতি নেওয়া।

মহানবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা পাঁচ জিনিসকে পাঁচ জিনিসের আগে গণিমতের সম্পদ মনে কর। ১. যৌবনকে বার্ধক্যের আগে, ২. সুস্থতাকে অসুস্থতার আগে, ৩. সচ্ছলতাকে অভাবের আগে, ৪. অবসরকে ব্যস্ততার আগে, ৫. জীবনকে মৃত্যুর আগে।’ (মুস্তাদরাক হাকেম, হাদিস নম্বর ৭৮৪৬।)
মৃত্যুর সবচেয়ে বড় প্রস্তুতি হলো- নিজেকে ভালো কাজে নিয়োজিত করা এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখা। মহানবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা নেক আমলের দিকে দৌড়ে আস ঘুটঘুটে অন্ধকার রাতের মতো ফেতনা নেমে আসার আগেই।’ (মুসলিম, হাদিস নম্বর ৩২৮।)

পাপ ছেড়ে দেওয়ার মাধ্যমেও মুমিন ব্যক্তি মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হতে পারে। পাশাপাশি অতীত ভুলত্রুটি ও পাপের জন্য তওবা করার মাধ্যমেও ভালো মৃত্যুর প্রস্তুতি নেওয়া যায়।

মুমিন মাত্রই আল্লাহর প্রতি এ সুধারণা পোষণ করবে যে, তিনি অবশ্যই মৃত্যুর সময় বান্দার মৃত্যু কষ্ট কমিয়ে দেবেন। কারণ আল্লাহর প্রতি যে যেমন ধারণা করবে আল্লাহ তার সঙ্গে এমন আচরণই করবেন।
এক হাদিসে কুদসিতে আল্লাহ বলেন, ‘আমার সম্পর্কে আমার বান্দার ধারণা মোতাবেক আমি আচরণ করি। আমি তার সঙ্গে থাকি।’ (বুখারি, হাদিস হাদিস ৭৪০৫।)

অন্য হাদিসে জাবির (রা.) বলেন, ‘রসুলুল্লাহ (সা.)-এর মৃত্যুর তিন দিন আগে তাকে আমি এ কথা বলতে শুনেছি যে, তোমাদের সবাই যেন আল্লাহর প্রতি উত্তম ধারণা পোষণরত অবস্থায় মারা যায়।’ (মুসলিম, হাদিস নম্বর ৭১২১।)

মৃত্যুকে অধিক পরিমাণে স্মরণ করার মাধ্যমেও ভালো মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত করা যায়। বেশি বেশি মৃত্যুকে স্মরণ করার বড় একটি উপকার হচ্ছে, অন্তর থেকে দুনিয়ার আসক্তি দূর হয় এবং পরকালের চিন্তা ও আমল বাড়ে।

রসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘সব ভোগ-উপভোগ বিনাশকারী মৃত্যুকে তোমরা বেশি বেশি স্মরণ করো।’ (তিরমিজি, হাদিস নম্বর ২৩০৭।)

মৃত্যুকে স্মরণের আরেকটি উপায় হলো কবর জিয়ারত। কবর জিয়ারত মৃত্যু ও আখিরাতকে স্মরণ করিয়ে দেয়। অন্তরে কবরের শাস্তির ভয়াবহতা সৃষ্টি করে। ফলে এর দ্বারা অন্যায় থেকে তওবা এবং মৃত্যুর প্রস্তুতি গ্রহণে সাহায্য করে।

রসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আমি তোমাদের এর আগে কবর জিয়ারতে নিষেধ করেছিলাম, এখন থেকে কবর জিয়ারত করো। কেননা তা দুনিয়া বিমুখতা এনে দেয় এবং আখিরাতের স্মরণ করিয়ে দেয়।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস নম্বর ১৫৭১।)

লেখক : চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মুফাসসির সোসাইটি, পীরসাহেব, আউলিয়ানগর।

লেখাটি বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন…

মন্তব্য...

comments

কে. আর প্লাজা (১২ তলা) ৩১, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০
ফোন: ০২-৯৫১৫৬৪৬, মোবাইল: ০১৭১৮৭৭৮২৩৮, ০১৯৬৫৬১৮৯৪৭
ইমেইল- mawlanaselimhossainazadi1985@gmail.com
ওয়ের সাইট: selimazadi.com