মনের জমিনে ফুটবে ফুল মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী | রবিবার, ২৮ মে ২০১৭ | পড়া হয়েছে 71 বার

ফিরে এলো মাহে রমজান। আজ থেকে মাবুদের অফুরান রহমতের বারিধারায় পলি পড়বে রোজাদারের রুহে।

বরকতের জোয়ার লেগে ফুলফল ফুটতে থাকবে মনের জমিনে। নাজাতের সওগাত বিতরণ হবে আজ থেকে সারা জাহানে। রমজান আসে নৈতিক ও চারিত্রিক উন্নয়ন, সামাজিক শিষ্টাচার, পারস্পরিক সহনশীলতা, সাম্য, মৈত্রী ও শান্তির প্রতিশ্রুতি নিয়ে। তাকওয়া-খোদাভীতি, ধৈর্য, ত্যাগ, সাধনা, দয়ার্দ্রতা, দানশীলতা ও মানবপ্রেমের মতো নৈতিক গুণাবলির বিকাশ হয় এ মাসে। একমাত্র নৈতিক ও চারিত্রিক গুণাবলির কারণেই মানুষ সৃষ্টির সেরা ‘আশরাফুল মাখলুকাত’। মানুষকে আশরাফুল মাখলুকাতের সর্বোচ্চ মর্যাদায় পৌঁছে দিতেই প্রতি বছর আসে মাহে রমজান। মানুষ যখন নৈতিক ও চারিত্রিক গুণাবলি হারিয়ে ফেলে তখন হয়ে যায় ইতর পশুর মতো; বরং তার চেয়েও অধম। পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা বলেন, আমি তো বহু জিন ও মানুষকে জাহান্নামের জন্য সৃষ্টি করেছি। তাদের অন্তর আছে, কিন্তু তাতে তারা উপলব্ধি করে না। তাদের চক্ষু আছে, তা দিয়ে তারা দেখে না এবং তাদের কর্ণ আছে, তা দিয়ে শ্রবণ করে না। এরা চতুষ্পদ জন্তুর মতো, বরং তার চেয়েও অধিক বিভ্রান্ত। তারাই হলো গাফেল। (সূরা আরাফ : ১৭৯) রমজান মানুষের জীবনে কীভাবে নৈতিক চরিত্রের বিকাশ সাধন করে সে প্রসঙ্গ টেনে শুরু করেছি প্রথম রমজানের আলোচনা। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশে যাবতীয় পানাহার ও স্ত্রী-সংশ্রব থেকে বিরত থাকার নাম সিয়াম। এ সময় ক্ষুধা-পিপাসার অসহ্য যন্ত্রণা ভোগ করে রোজাদার আল্লাহর ভয়ে পানাহার থেকে বিরত থাকে। প্রাণপ্রিয় স্ত্রী থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় শুধু আল্লাহর ভয়ে। এভাবে কাম, ক্রোধ, লোভ ও নানা রকম দূষণীয় স্বভাব যেগুলো মানুষকে নিয়ে যায় পশুর স্তরে। যেগুলো জন্ম দেয় সমাজে নানা অশান্তি ও অনাচার। এ সবের সঙ্গে রোজাদারের সংগ্রাম চলে মাসব্যাপী। এক মাসের এ কৃচ্ছ সাধনা ও নিরবচ্ছিন্ন সংগ্রামের মাধ্যমে মানুষ নিজের নফস বা প্রবৃত্তিকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। দেহ পরিচালিত হয় নৈতিক চরিত্র ও বিবেকের নির্দেশ মতো। এভাবেই মানব দেহের ওপর প্রতিষ্ঠিত হয় বিবেকের শাসন ও আল্লাহর রাজত্ব। ফলে মাটির মানুষ পরিণত হয় সোনার মানুষে। সারা দিন উপবাসে কাতর হয়ে রোজাদার যখন ইফতারের সময় খাবার সামনে নিয়ে বসে তা একাকী নিজে খেয়ে উদরপূর্তি করতে পারে না। রসুল (সা.)-এর পবিত্র বাণী বেজে উঠে তার হৃদয় তরে, ‘যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে সে ব্যক্তির গোনাহের ক্ষমা ও দোজখ থেকে মুক্তিলাভের সম্বল হবে এবং তাকে ওই রোজাদারের রোজার সমতুল্য অতিরিক্ত সওয়াব দেওয়া হবে। ’ (বায়হাকীর বরাতে মিশকাত) যারা সমাজের ওপরতলার বাসিন্দা তারাও রমজানে উপোস থেকে উপলব্ধি করতে পারবেন অনাহার-উপবাসের কি ভয়াল যন্ত্রণা। তাই তারা নিজের সঞ্চিত অর্থের একটি অংশ জাকাত হিসেবে বিতরণ করেন গরিবদের মাঝে। রমজান শেষ হতেই তারা ফিতরা দিয়ে দেন অভাবি লোকদের হাতে। আর সে জাকাত-ফিতরায় গরিবদের সংসারে ফিরে আসে সচ্ছলতা। ধনীর ধনের প্রতি হিংসা আক্রোশের পরিবর্তে গরিবদের মনে জাগ্রত হয় শ্রদ্ধা ও সহযোগিতার ভাবধারা। আল্লাহর জন্য দান করে ধনীরাও পায় অনাবিল তৃপ্তি ও কল্যাণ। এমনি করে মাহে রমজানে ধনী ও গরিবের মাঝে মমত্ব, ভ্রাতৃত্ব ও সহযোগিতা প্রতিষ্ঠার অনুশীলন হয়। বিকশিত হয় আশরাফুল মাখলুকাতের অনন্য রূপ সৌন্দর্য। দুনিয়ার সর্বত্র আজ ধনী-গরিবে চলছে শ্রেণি সংগ্রাম, হানাহানি, রক্তপাত। সমাজের একদিকে দেখি পুঁজিপতিদের স্বর্গসৌধ, অন্যদিকে সেই সৌধের প্রাচীর ঘেঁষে অনাহার-ক্লিষ্ট দরিদ্র মানুষের সারি। এক্ষেত্রে রমজানুল মোবারকের আদর্শ হচ্ছে সর্বহারা আর পুঁজিপতির আকাশ-পাতাল ব্যবধান দূর করে সমাজে সাম্য ও শান্তিধারা বইয়ে দেওয়া। রমজানের পর ঈদের দিনে আমরা সাম্য মৈত্রীর সেই শান্তিময় সমাজ ব্যবস্থারই প্রদর্শনী দেখতে পাই মুমিনের ঘরে ঘরে আর ঈদের ময়দানে। সন্ধ্যায় ইফতারের পর ক্লান্ত-অবসন্ন শরীর যখন বিছানায় মিশে যেতে চায় তখনই তাগাদা আসে তারাবি নামাজের। যুবক, বৃদ্ধ, কিশোর মিলে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে তারাবি নামাজ আদায় করে মসজিদসমূহে মুসল্লিরা। তারাবির পর বিশ্রামের জন্য যেতে না যেতে আবার শেষ রাতে সেহরি খাওয়ার ডাক পড়ে। রমজানে কর্মব্যস্ততা আর তৎপরতা মানুষের যাবতীয় অলসতা-বিলাসিতা দূর করে তাকে সতেজ করে দেয়। এ মাস নিত্য-নতুন কর্মচাঞ্চল্য ও কর্ম ব্যস্ততায় উজ্জীবিত করে রোজাদারকে। প্রত্যেকের জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয় সুষ্ঠু নিয়মশৃঙ্খলা ও গতিশীলতা। রমজান হচ্ছে মুসলমানদের আত্মশুদ্ধি, আত্মগঠন, সামাজিক উন্নতি ও শান্তি প্রতিষ্ঠার মাসব্যাপী এক কর্মশালা। এই কর্মশালা রোজাদারের মনে জাগিয়ে দেয় আল্লাহর ভয় ও আখেরাতে আল্লাহর অফুরান প্রতিদান লাভের ইচ্ছা। এ জন্য রোজার প্রধান শর্ত হচ্ছে, পানাহার ও স্ত্রী সংশ্রব ত্যাগের সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহর ইবাদত ও সওয়াবের নিয়ত করা।

সহীহ হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, নবীজী (সা.) বলেন, ‘আমলের প্রতিদান নিয়তের ওপর নির্ভরশীল’ (বুখারী শরিফ)। বিশুদ্ধ নিয়তের রোজা মুমিন বান্দার অন্তরে এনে দেয় দুর্জয় শক্তি। যে শক্তি বান্দাকে আল্লাহর দাসত্ব ও প্রতিনিধিত্বের যথার্থ উপলব্ধি দিয়ে পাশাপাশি বানিয়ে দেয় ইনসানে কামিল। নবীজী (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজান মাসে ইমান ও এহতেসাব (আত্মবিশ্লেষণ) সহকারে রোজা রাখে তার পূর্ববর্তী সব গোনাহ মাফ করে দেওয়া হয়। ’ (বুখারী শরিফ) এমনিভাবে রোজা সম্বন্ধে হাদিসে কুদসিতে আল্লাহপাক বলেন, ‘রোজা একমাত্র আমার জন্য এবং তার প্রতিদান আমি নিজ হাতে দেব অথবা অন্য অর্থে আমিই স্বয়ং তার প্রতিদান। ’ (বুখারী, মুসলিমের বরাতে, মিশকাত) দুনিয়ার সব অশান্তির মূল আল্লাহর প্রতি অবিশ্বাস ও আখেরাতের প্রতি উদাসীনতা। লেখক : বিশিষ্ট মুফাসসিরে কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব . www.selimazadi.com

এই লেখাটি বাংলাদেশ প্রতিদিনে ছাপা হয়েছিল। দেখতে হলে ক্লিক করুন…

মন্তব্য...

comments