মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন (রা.)

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী | শনিবার, ২৯ জুলাই ২০২৩ | পড়া হয়েছে 48 বার

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

আরবি ‘মানাকিব’ শব্দের অর্থ মর্যাদা। হাদিসের কিতাবগুলোতে মানাকিব তথা মর্যাদাবিষয়ক অধ্যায় থাকে। সিহাহ সিত্তা তথা ছয়টি বিশুদ্ধ হাদিস গ্রন্থেই এ ধরনের কিতাব বা অধ্যায় রয়েছে। ওসব অধ্যায়ে জলিলে কদর সাহাবিদের মর্যাদা সম্পর্কে প্রিয়নবী (সা.) যা বলেছেন সে বর্ণনাগুলো মুহাদ্দিসগণ একত্রিত করেছেন। বুখারি শরিফ থেকে শুরু করে হাদিসের বিশুদ্ধ কয়েকটি কিতাব থেকে রসুল (সা.)-এর প্রিয় দুই নাতি হাসান ও হোসাইন (রা.) এর মানাকিব সম্পর্কে কয়েকটি বর্ণনা পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরছি।

হজরত উসামা ইবনে জায়েদ (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) উসামা ও হাসানকে (রা.) কোলে বসিয়ে বলতেন- আল্লাহুম্মা ইন্নি উহিব্বুহুমা ফাআহিব্বাহুমা। হে আল্লাহ! আমি এ দুজনকে ভালোবাসি। আপনিও তাদের ভালোবাসুন। (বুখারি শরিফ, কিতাবুল আম্বিয়া, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন)।

জলিলে কদর সাহাবি হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, কারবালায় ইমাম হোসানইনকে (রা.) নির্মমভাবে শহীদ করার পর তাঁর কাটা মাথা ইবনে জিয়াদের সামনে রাখা হলো। ইবনে জিয়াদ একটি লাঠি দিয়ে ইমামের নাক-মুখ খোঁচাচ্ছেন আর বলছেন কী কুৎসিত-বীভৎস চেহারা নিয়ে জন্মেছে মুহাম্মদের নাতি। আনাস (রা.) বললেন, কানা আশবাহাহুম বিরাসুলিল্লাহি (সা.)। অর্থাৎ ইমাম হোসাইন (রা.)-এর চেহারা মোবারক রসুল (সা.) এর নুরানি চেহারার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি মিল ছিল। ওয়ালকানা মাখদুবান বিল ওয়ালসমাতি। শুধু তাই নয়, ইমাম হোসাইনের চুল দাড়ি ওয়ালসামা নামক এক ধরনের পাতার রস দিয়ে কলপ দেওয়া ছিল। (বুখারি শরিফ, কিতাবুল আম্বিয়া, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন)।

 

এ তো গেল বুখারি শরিফের বর্ণনা। তারিখের কিতাবগুলোতে এ ঘটনা আরও বিস্তারিত এসেছে। তাবারি, ইবনে আসির ও বিদায়া ওয়ালন নেহায়ার সূত্রে শামে কারবালার লেখক উল্লেখ করেন, ইমাম হোসাইনের কাটা শিরের সঙ্গে ইবনে জিয়াদের এমন বেয়াদবিপূর্ণ আচরণ দেখে দরবারে থাকা আহলে বাইত প্রেমিকদের অন্তর রাগে-ক্ষোভে চৌচির হয়ে যায়। প্রবীণ সাহাবি জায়েদ বিন আরকাম (রা.) কান্নায় ভেঙে পড়লেন।

নিজেকে সামলে নিয়ে বললেন, ‘হে মারজানার ছেলে! ইমাম পাকের নাক-মুখ থেকে তোর লাঠি সরিয়ে নে। আল্লাহর কসম! আমি নিজ চোখে দেখেছি ওই ঠোঁটে রসুল (সা.) অসংখ্যবার চুমু খেয়েছেন। কথাগুলো বলেই আবার কান্নায় ভেঙে পড়লেন তিনি। ইবনে জিয়াদ বললেন, খোদা তোকে কাঁদাক। তুই যদি বুড়া না হইতি আর তোর বিবেক বুদ্ধি খারাপ না হতো তাহলে আজ তোরও এ পরিণতি করতাম। (তারিখে তাবারি, ষষ্ঠ খ, ৩৬২ পৃষ্ঠা, ইবনে আসির, চতুর্থ খ, ৩৩ পৃষ্ঠা, আল বিদায়া অষ্টম খ, ১৯০ পৃষ্ঠা)।

জলিলে কদর সাহাবি হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেছেন, আল হাসানু ওয়াল হোসাইনু সায়্যিদা শাবাবি আহলিল জান্নাহ। হাসান-হোসাইন হলো জান্নাতি যুবকদের নেতা। (তিরমিজি শরিফ, কিতাবুল মানাকিব, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন।) হজরত উসামা ইবনে জায়েদ (সা.) বলেন, এক দিন কোনো এক প্রয়োজনে আমি রসুল (সা.) কাছে গেলাম। তার দেহ চাদর দিয়ে পেঁচানো ছিল। প্রয়োজন শেষে আমি বললাম আপনার চাদরের ভিতর কী?

রসুল (সা.) চাদর খুললে সেখানে হাসান ও হোসাইনকে বসা দেখলাম। রসুল (সা.) আমার দিকে তাকিয়ে বললেন, এরা দুজন আমার কন্যা ফাতেমার সন্তান আর আমার নাতি। হে আল্লাহ! আমি এদের দুজনকে ভালোবাসি। তুমিও এদের ভালোবাস। যারা এদের ভালোবাসবে তাদেরও তুমি ভালোবাসার চাদরে জড়িয়ে নিও। (তিরমিজি শরিফ, কিতাবুল মানাকিব, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন)।

সালমা (রা.) বলেন, আমি একবার উম্মে সালমা (রা.) এর কাছে গেলাম। আমি দেখলাম তিনি অঝোরে কাঁদছেন। জিজ্ঞেস করলেন হে আম্মাজান! আপনি কাঁদছেন কেন? উত্তরে তিনি বললেন, কিছুক্ষণ আগে আমি রসুলকে (সা.) স্বপ্নে দেখলাম। হুজুরের মাথায় ও দাড়ি মোবারক ধুলোমলিন দেখে জিজ্ঞেস করলাম, হে নবী! আপনার কী হয়েছে? সারা দেহে এমন মাটি লেগে আছে কেন?

জবাবে নবীজি বললেন, উম্মে সালমা! তুমি তো জান না এই মাত্র কারবালার ময়দানে আমার নাতি হোসাইনকে শহীদ করা হয়েছে। আমি সেখান থেকেই এসেছি। (তিরমিজি শরিফ, কিতাবুল মানাকিব, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন)।

মুফাসসির সাহাবি হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, এক দিন ছোট্ট হাসানকে রসুল (সা.) কাঁধে চড়িয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। এক ব্যক্তি থেকে বললেন, ওহে বালক! তুমি তো খুব দামি বাহনে চড়েছ। এ কথা শুনে রসুল (সা.) বললেন, হে পথিক! ভেবে দেখো আরোহীটিও কত উত্তম।’ (তিরমিজি শরিফ, কিতাবুল মানাকিব, বাবুল মানাকিবে হাসান ওয়াল হোসাইন)।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেছেন, যারা আমার দুই নাতি হাসান ও হোসাইনকে ভালোবাসে, তারা যেন আমাকেই ভালোবাসল। যারা আমার এই দুই নাতির সঙ্গে শত্রুতা করে তারা যেন আমার সঙ্গেই শত্রুতা করল। (সুনানে ইবনে মাজাহ, ফাদলু হাসান ওয়াল হোসাইন)।

লেখক : চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মুফাসসির সোসাইটি, পীরসাহেব, আউলিয়ানগর

লেখাটি বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন…

মন্তব্য...

comments

কে. আর প্লাজা (১২ তলা) ৩১, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০
ফোন: ০২-৯৫১৫৬৪৬, মোবাইল: ০১৭১৮৭৭৮২৩৮, ০১৯৬৫৬১৮৯৪৭
ইমেইল- mawlanaselimhossainazadi1985@gmail.com
ওয়ের সাইট: selimazadi.com